Gallery

বিকাশ (bkash) কি? !!! কেন এবং কিভাবে ব্যবহার করবেন!!!

আমার আজকের লেখার বিষয় বিকাশ(bKash)। চেষ্টা করছি বিকাশ সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরার জন্য। টিভিতে/রেডিওতে দেখে বা শুনে অনেকেরই আগ্রহ জাগে সার্ভিসটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য তাদের জন্য এই টিউন। আপনার/আমার উপকারে না লাগলেও হয়তো অনেকের উপকারে লাগবে তাই জেনে রাখুন। এইটা নিয়ে আগে রাসেল জাপান ভাই একটা লিখেছিল তবে আমারটা একটু ভিন্ন bKash কি?

bKash(বিকাশ) হচ্ছে মোবাইল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সহজে ও দ্রুত টাকা পাঠানোর অন্যতম পদ্ধতি।

কেন বিকাশ ব্যবহার করবেন??

অর্থাৎ বিকাশ ব্যবহার করে আপনি কি কি সুবিধাগুলো পাবেনঃ

# সেকেন্ডের মধ্যে বাংলাদেশের যে কোন জায়গায় টাকা পাঠাতে পারবেন।

# ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার দোকান থেকে কেনা-কাটা করতে পারবেন। আমার জানামতে বর্তমানে আড়ং এ এই সুবিধা পাওয়া যায়। তবে আপনার যদি দোকান থাকে আপনিও রেজিঃ করে আপনার ক্রেতাদের কাছ থেকে বিকাশ এর মাধ্যমে পেমেন্ট গ্রহন করতে পারবেন।

# কিছৃ কিছৃ অনলাইন শপিং সাইট বর্তমানে বিকাশ সাপোর্ট করছে। তাই অনলাইনেও কেনাকাটা কারতে পারেন।

আর অন্যান্য কাজগুলোর কথা আপনারা বুঝতেই পারছেন।

bKash রেজিস্ট্রেশন করতে কি কি কাগজপত্র লাগেঃ

১। একটি রবি অথবা গ্রামীণফোন নাম্বার

২। ১ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।

৩। ভোটার আইডি অথবা পাসপোর্ট অথবা ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফটোকপি। (সত্যায়িত করা লাগবে না)

৪। যার নামে রেজিস্ট্রেশন করবেন তার বয়স অবশ্যই ১৮ বছরের বেশি হতে হবে এবং রেজিঃ করার সময় বিকাশ এজেন্টের কাছে সশরীরে উপস্থিত হয়ে রেজিঃ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে।

আর একটি কথা তো বলতে ভুলেই গেছি রেজিস্ট্রেশন করতে কিন্তু কোন টাকা লাগে না অর্থাৎ ফ্রি। তাই রেজিঃ করে রাখতে পারেন।

যেভাবে রেজিস্ট্রেশন করবেনঃ

প্রথমে আপনাকে আপনার এলাকার bkash এজেন্ট খুজে বের করতে হবে। খোজাখুজির কথা শুনে ভয় পাওয়ার কিছু নেই আপনি চাইলে অনলাইনেই দেখে নিতে পারবেন আপনার এলাকার বিকাশ এজেন্টদের ঠিকানা।

আপনার এলাকার বিকাশ এজেন্টের ঠিকানা খুজে বের করবেন কিভাবে?

এখানে ক্লিক করে আপনার এলাকা(যেখানে রেজিঃ করবেন)তা নির্বাচন করুন

তারপর Find এ ক্লিক করলেই আপনার এলাকার বিকাশ এজেন্টদের লিস্ট/দোকানের ঠিকানা পেয়ে যাবেন। তারপর আপনাকে উপরের কাগজপত্র নিয়ে সেখানে যেতে হবে।

বিকাশ এজেন্ট আপনাকে একটি ফর্ম দিবে ঐটা পূরন করতে হবে। তারপর

আপনার মোবাইল নং এ একটি কনফারমেশন মেসেজ আসবে। আপনাকে এখন আপনার ট্রানজেকশন পিন তৈরি করতে হবে। মনে রাখবেন ট্রানজেকশন পিন যার হাতে টাকা কিন্তু তার। সুতরাং ট্রানজেকশন পিন গোপনে রাখবেন। ট্রানজেকশন পিন ৪সংখ্যার একটি নাম্বার। টাকা তুলতে কিন্তু আপনার ট্রানজেকশন পিন লাগবে।

রেজিঃ তো শেষ এবার টাকা লোড করার পালা। টাকা লোড করা হচ্ছে সবচেয়ে সহজ। যেভাবে ফ্লেক্সিলোড করেন একই সিস্টেম বিকাশ এজেন্টকে টাকা আর আপনার নাম্বার দিলেই আপনার কাজ শেষ। ফ্লেক্সির সাথে পার্থক্য হচ্ছে এই টাকা আপনি তুলতে পারবেন আর ফ্লেক্সির টাকা কথা বলে শেষ করতে হয়।

বিকাশ থেকে কিভাবে টাকা তুলবেন?

আপনার বিকাশ একাউন্টের টাকা তোলার জন্য বিকাশ এজেন্টের কাছে গিয়ে তাকে অবহিত করুন আপনি কত টাকা তুলতে চান। তাহলে বিকাশ এজেন্ট আপনাকে তার একাউন্ট নাম্বার দিবে। এখন আপনাকে ঐ নাম্বারে টাকা পাঠাতে হবে। টাকা পাঠাতে কিন্তু আপনার ট্রানজেকশন পিন লাগবে।

এজেন্টকে টাকা পাঠানোর জন্য আপনার মোবাইল থেকে *247# ডায়াল করলে বিকাশ মেনু আসবে।

তারপর 4. Cash Out অপশনটি নির্বাচন করবেন। তারপর 1. From Agent নির্বাচন করে এজেন্টের একাউন্ট নাম্বার দিয়ে OK করলে আপনার ট্রানজেকশন পিন দিতে হবে। তাহলে আপনার টাকা পেয়ে যাবেন। আর এই কাজগুলো আপনি না পারলে বিকাশ এজেন্টকে বললেই করে দেবে সমস্যা নাই। তবে আপনার পিন নাম্বার কিন্তু তাকে বলবেন না। :পি

টাকা তোলার সময় আপনার টাকা হতে কিছু চার্জ কেটে রাখা হবে যা নিম্নরূপঃ

আপনি চাইলে আপনার একাউন্ট থেকে অন্য কাউকে টাকা পাঠাতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনার একাউন্ট থেকে অতিরিক্ত ২ টাকা সার্ভিস চার্জ হিসাবে কেটে নেবে। তাই আপনি কাউকে টাকা পাঠালে এজেন্টকে দিয়েই পাঠাইয়েন তাহলে আপনার আর অতিরিক্ত ২টাকা লাগবে না।

আপনার বাসার ফ্যান/লাইট, গ্যাসের চুলা বিনা কারণে জ্বালিয়ে রাখবেন না। এগুলো আমাদেরই সম্পদ। আর যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা( ঠোঙ্গা/চিপস/চকলেট এর মোড়ক) ফেলবেন না। তাহলে আপনার পরিবেশ পরিষ্কার থাকবে। অনেকেই বলেন “ বিদেশ এত পরিষ্কার কিন্তু আমাদের দেশে এত নোংরা(ধুলা/বালি/আবর্জনা) কেন?” আমরা কি পারি না আমাদের চারপাশ পরিষ্কার রাখতে?????

শেষ করার আগে একটা কথা কোন ভাল কিছু করতে হলে পরিবর্তন আসতে হয় ভিতর থেকে বাইরে থেকে পরিবর্তনের ফল কিন্তু স্থায়ী হয় না। যেমন ধরুন একটা ডিম যখন ভাজি/রান্না করা হয় তখন তা বাহিরে থেকে ভাঙ্গা হয়। আর যদি আপনা-আপনি ডিম ভেতর থেকে ভাঙ্গে তাহলে একটি নতুন জীবনের সৃষ্টি হয়। আর নতুন জীবন মানেই নতুন সম্ভবনা।

অনেক প্যাচাল হল।

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s